Self Injury Disorder কি?

Must Read

আপুরা, আসুন সতর্ক হই …

আপুরা, আসুন সতর্ক হই ... ১। রাতে একা বহুতল ভবনের লিফটে উঠার সময় যদি কোন অচেনা এবং সন্দেহজনক পুরুষের পাল্লায় পরেন তখন...

একজন ডাক্তারের গল্পঃ

একজন ডাক্তার বাংলাদেশে প্রাইভেট হাসপাতালের চাকরি ছেড়ে কানাডায় গিয়ে একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে সেলসম্যান হিসাবে যোগ দিলেন। স্টোরের মালিক জিজ্ঞেস করলেন-...

মানুষ-হ-মানুষ, অমানুষের-দল-মানুষ-হ

#মানুষ_হ_মানুষ   #অমানুষের_দল_মানুষ_হ আপনাকে যদি জিজ্ঞেস করা হয় একটা ব্লেড দিয়ে আপনি সাধারণত কি কাজ করেন? আপনি হয়তো বলবেন "আমরা এটা...
প্রথম আলোতে বেশকিছুদিন আগে একটি খবর অনেকের চোখে পড়ে থাকতে পারে যে সাতক্ষীরায় এক ব্যক্তি তার হারানো ছাগলের খোঁজ করতে গিয়ে ব্যর্থ হয়ে রাগে তার নিজের চোখ নিজেই উপড়ে ফেলেছে।
ব্যাপারটাতে লোকজন হাস্যকর কিছু খুজে পেলেও সেটা যথেষ্ট সিরিয়াস বিষয়ও।জানার জন্য নেট ঘাটাঘাটি করে জানতে পারলাম যে এটা একটা মেন্টাল ডিস-অর্ডার, নাম self injury disorder
 
Self Injury Disorder কি?
যে মানসিক সমস্যার কারনে কোন ব্যক্তি যখন নিজেই তার দেহের কোন অংশের ক্ষতি সাধন করে (আত্মহত্যা নয়) তখন তাকে Non suicidal self injury বা self-harm বা self mutilation বলে।
গবেষণা বলছে কোন ব্যক্তি এই সমস্যার মধ্যে দিয়ে যেতে পারে :
১.যাদের শারীরিক,মানসিক বা যৌন হয়রানির ইতিহাস রয়েছে।
২.যারা এমন পরিবারে বড় হয়েছে যেখানে রাগ বা উষ্মা প্রকাশে বাধা দেয়া হয়।
৩.যাদের আবেগ প্রকাশ করার ক্ষমতা তুলনামূলকভাবে কম অথবা যাদের সোশ্যাল সাপোর্ট নেটওয়ার্ক কম রয়েছে।
৪.obosessive Compulsive disorder অথবা eating disorder এর মত সমস্যা যাদের আছে তারা।
৫.কৈশোরে পা রাখা মেয়েরা।
 
প্রকাশ:
ব্যক্তিটি কয়েকটি উপায়ে নিজের দেহের ক্ষতিসাধন করতে পারেন।যেমন:
-দেহের কোনও অংশ বারবার কাটা বা পুড়িয়ে ফেলা
-নিজেকে ঘুষি মারা বা আঁচড়ানো
-দেহে সুচ ঢুকানো
-দেয়ালে মাথা ঠুকা
-চোখ চেপে ধরা
-আঙ্গুল বা হাত কামড়ে ধরা
-চুল টেনে তুলে ফেলা বা চেষ্টা করা
-স্কিন বা চামড়া তুলে ফেলা অথবা ক্ষতি করা
 
 লক্ষণ:
এই ডিস-অর্ডারের লক্ষণ ঐ ব্যক্তির মানসিক অবস্থা বা পরিবেশের উপর নির্ভর করে ভিন্ন হতে পারে।যেমন:
-তীব্র গরমেও ফুল হাতা জামা ও প্যান্ট পড়ে থাকা
– লাইটার,রেজর বা ধারালো কোনও বস্তু সঙ্গে রাখা যা তার সাথে থাকার কথা নয়
-কম আত্মসম্মানবোধ
-আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে না পারা
-স্কুল,কলেজে খারাপ পারফরম্যান্স ইত্যাদি।
কাছের কোনও ব্যক্তির মধ্যে এমন অস্বাভাবিক আচরণ প্রকাশ পেলে মানসিক চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করতে বলুন।
 
ছবি: ইন্টারনেট

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest News

আপুরা, আসুন সতর্ক হই …

আপুরা, আসুন সতর্ক হই ... ১। রাতে একা বহুতল ভবনের লিফটে উঠার সময় যদি কোন অচেনা এবং সন্দেহজনক পুরুষের পাল্লায় পরেন তখন...

More Articles Like This